Categories
জাতীয়

বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালিয়াতির দেশ: শাহরিয়ার কবির

মহামারি করো’নাভা’ইরাস শনা’ক্ত ও চিকিৎসা জা’লিয়াতির সঙ্গে যুক্ত রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মো. সাহেদের ‘গ’ডফাদার’দের’ গ্রে’ফতারের দাবি জানিয়েছেন ঘা’তক দা’লাল নির্মূ’ল কমিটির আহ্বায়ক শাহরিয়ার কবির।তিনি বলেছেন, ‘রাজনৈতিক ও ক্ষমতার দু’র্বৃ’ত্তায়নে মধ্যে যে মাফিয়া চ’ক্র গড়ে ওঠেছে, তার পেছনে কাদের হাত রয়েছে, তা খুঁজে বের করতে হবে।’

করো’না শনা’ক্তে জা’লিয়াতির বিষয়ে শনিবার (১১ জুলাই) জাগো নিউজের কাছে এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির।তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় অ’ক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, যা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে। অথচ, একটি ঘটনা সমস্ত অর্জন ম্লান করে দিয়েছে। কে এই সাহেদ? কারা তৈরি করল? সাহেদদের তৈরির পেছনে মিডিয়ারও দায় আছে। টকশোতে বড় বড় কথা বলতেন। তাকে সুযোগ দেয়া হতো। একবার টকশোতে গিয়ে তার সঞ্চালনায় রীতিমতো অবাক হই। ধম’ক দিয়ে থামিয়ে দেই।’

 

রাজনীতির ছত্রছায়াতেই সাহেদদের উত্থান- এমন প্রশ্নের জবাবে শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘সাহেদ বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। স্বাধীনতার পর মুক্তিযু’দ্ধের চেত’নাবিরো’ধীরাই দীর্ঘ সময় ক্ষ’মতায় থেকেছে। আর রাজনী’তির দু’র্বৃ’ত্তায়ন তাদের সময় থেকেই। প্রশ্ন হচ্ছে- এই দুর্বৃ’ত্তরা আওয়ামী লীগে ঢুকে মা’ফিয়া বনে যাচ্ছে কী করে? এর দায় ক্ষমতাসীনরা এড়াতে পারে না। এমন অপরা’ধের সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের ব্যক্তিরাও জড়িত। মেডিকেল মা’ফিয়া সা’হেদের সঙ্গে যখন চুক্তি হলো- তখন মন্ত্রী, সচিব, ডিজি জানতেন তার লাইসেন্স নেই। অথচ, চুক্তি করার সময় সবার আগে লাইসেন্স শো করতে হয়। এই অপ’রাধ তাদের সবার।’

 

এমন দুর্নী’তির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বিশ্ব ধরেই নিচ্ছে বাংলাদেশ জালি’য়াতির দেশ। এই ঘটনা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষ’তিগ্রস্ত করেছে। রেমিট্যান্স, প্রবাসীদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। বিশ্ব মিডিয়ায় এই দুর্নী’তির খবর প্রকাশ পেয়েছে। ইতালি থেকে প্রবাসীদের ফেরত পাঠানো হলো। সবচেয়ে ভ’য়ঙ্কর ঘটনা হচ্ছে- করোনা বিস্তারে এই ঘটনা সহায়ক হয়েছে। এই অপরাধের কোনো ক্ষ’মা হতে পারে না। এর সঙ্গে জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে।’

 

ঘা’তক দা’লাল নির্মূল কমিটির আহ্বায়ক বলেন, ‘সামাজিক অবক্ষ’য় ঘটছে সর্বত্রই। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিন দিনের শিশুর ম’রদেহ কবর থেকে তুলে ফে’লে দেয়া হয়েছে। এই সভ্য সমাজে এটি কোনোভাবেই বরদাশত করা যায় না। এটি একটি ফৌজদারি অপ’রাধ। অথচ স্থানীয় প্রশাসন আর আওয়ামী লীগ মিলে এর সমাধান টেনেছে। আমরা দেখেছি, যখনই সংখ্যা’লঘুদের ওপর নি’র্যাত’ন হয়, তখনই রাজনৈতিকভাবে মিটমাট করার চেষ্টা চলে। এমন হয় বলেই বারবার এমন পৈ’শাচিক ঘটনা ঘটছে। সমাজ ক্রমশই অধঃপ’তনে যাচ্ছে, যা এসব থেকে দৃশ্যমান হচ্ছে।’

 

উল্লেখ্য, নানা অ’নিয়ম, প্রতা’রণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভ’ঙ্গ, করোনা পরীক্ষার ভু’য়া রিপোর্ট, চিকিৎসায় অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভি’যোগে রিজেন্ট হাসপাতালের প্রধান কার্যালয়, উত্তরা ও মিরপুর শাখা সিলগালা করে দিয়েছে র‍্যাপিড অ্যা’কশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। রিজেন্ট হাসপাতাল ও গ্রুপের মালিক সাহেদ করিম গা ঢাকা দিয়েছেন। সাহেদের বিরু’দ্ধে মা’মলা করেছে র‍্যাব। মা’মলার সুষ্ঠু তদ’ন্তের স্বার্থে তার দেশত্যা’গে নিষেধা’জ্ঞা জারি করেছে পুলিশ।

 

সাহেদ নিজেকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য বলে পরিচয় দিতেন। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সাহেদ একসময় বিএনপি করতেন। বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সঙ্গে তার তোলা ছবি ভেসে আসছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। চলছে নানামুখী আলোচনা সমালোচনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *