Categories
জাতীয়

দাফনের আগে জীবিত হওয়া সেই নবজাতক মরিয়মকে বাঁচানো গেলো না

দাফনের আগে জীবিত সেই নবজাতক চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল (ঢামেক) হাসপাতালে মারা গেছে। বুধবার রাতে ঢামেক হাসপাতালের ২১১ নম্বর নবজাতক ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

 

ঢামেক হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকের বরাত দিয়ে নবজাতকের বাবা ইয়াসিন মোল্লা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মৃত্যুর আগে ওই নবজাতকের নাম রাখা হয়ে ছিল মরিয়ম।

 

আরও পড়ুন>>> বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তান লুডু টুর্নামেন্টে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা

আলিবাবা গ্রুপের অঙ্গ সংগঠন দারাজের গেইমিং প্ল্যাটফর্ম দারাজ ফার্স্ট গেইমস, ডিএফজি-তে আয়োজিত হয় বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তান লুডু টুর্নামেন্ট। দারাজের টেন টেন ক্যাম্পেইন উপলক্ষে গত ৭ থেকে ৯ অক্টোবর হয়ে যাওয়া এই লুডু টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মোট ১ লাখ প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে সেরা ৩০-এ জায়গা করে নেন বাংলাদেশের ২১ জন খেলোয়াড়।

এর মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন সিলেট মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী খুরশিদ জয়, যিনি জিতে নিয়েছেন ১ লাখ টাকার দারাজ ভাউচার। দ্বিতীয় স্থান অধিকারী শওকত ওসমান জিতে নেন ১০ হাজার টাকার দারাজ ভাউচার, এছাড়াও আরও ১৯ জন জিতে নেন ৩ হাজার টাকার সমমূল্যের ভাউচার।

 

দারাজ বাংলাদেশের হেড অফিসে বুধবার প্রথম বিজয়ীর হাতে ভাউচারটি তুলে দেন প্রতিষ্ঠানটির হেড অফ মার্কেটিং সৈয়দ আহমদ আবরার হাসনাইন। লুডু লাখপতি’র প্রথম বিজয়ী খুরশিদ বলেন, আমি কখনো চিন্তাও করিনি যে এই টুর্নামেন্টের উইনার হব। টেন টেন ক্যাম্পেইনের সময় যখন ম্যাচে রেজিস্ট্রেশন করার নোটিফিকেশন আসলো তখন ভাবলাম করেই ফেলি।

 

তারপর একটা একটা করে ম্যাচ খেলতে খেলতে ফাইনাল রাউন্ডে চলে গেলাম আর উইনার হলাম। আমি জোর গলায় বলতে চাই যে দারাজ আসলেই একটি বিশ্বস্ত কোম্পানি। এছাড়াও দারাজের সিক্সথ অ্যানিভার্সারি ক্যাম্পেইনের আর.জে কম্পিটিশনের বিজয়ীদের হাতেও তুলে দেওয়া হয় পুরষ্কার।

 

এর মধ্যে প্রথম হয়েছেন ক্যাপিটাল এফএম-এর আর.জে রাশেদ, যিনি পেয়েছেন একটি রিয়েলমি সিক্স ফোন ও দ্বিতীয় হয়েছেন স্পাইস এফএম-এর আর.জে আনিজা, যিনি পেয়েছেন একটি রিয়েলমি সি ১১ ফোন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *