Categories
জাতীয়

ভিপি নুরদের বিরুদ্ধে মামলা করা সেই ছাত্রীর দেহে করোনার উপসর্গ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যা”লয়ের কেন্দ্রী’য় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপ’তি (ভিপি) নুরুল হক নুর ও তার ৫ সহযো”গীর বি’রু’দ্ধে ধ”র্ষ’ণের অ’ভি’যোগে করা মা’ম’লার বা’দী হাসপাতা’লে চি’কিৎসাধী’ন। তার দেহে ক’রো’নার উপ’সর্গ থাকায় রোববার (১৮ অক্টো’বর) রাত পৌ’নে ১টায় ঢাকা মেডি’কেল কলেজ (ঢামেক) হাসপা’তা’লের নতুন ভ’বনের’ ক’রো’না ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয় এই ঢাবি ছা’ত্রী’কে।

 

ঢামেক হাস’পাতা’লের কর্তব্য’রত চিকিৎস ক জানিয়েছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইস’লামিক স্টাডিজের স্না’ত’কোত্তরের ওই ‘শিক্ষার্থী গত’রাতে হাসপা’তা’লে ভর্তি হ’য়েছেন। নমুনা পরী’ক্ষার পর বোঝা যা’বে তিনি ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত কি না। ‘সপাতা’লের ৯০২ নম্বর ও’য়ার্ডে তার চি’কিৎসা চলছে। এর আগে গত ৮ অক্টোবর থেকে নুরসহ ৬ অ’ভিযু’ক্ত ব্যক্তির বি’রু’দ্ধে আম’রণ অ’নশন শুরু করেন বিশ্ব’বিদ্যা’লয়ের ইস’লা’মিক স্টা’ডিজের ওই ছা’ত্রী।

 

প্রসঙ্গত, গত ২০ ও ২১ সে’প্টেম্বর রা’জধানীর লালবাগ ও কো’তোয়ালি থা’নায় নুরুল হক নূর ও তার পাঁচ সহযো”গীর বি’রু’দ্ধে নারী ও শি’শু নি’র্যাতন দমন আ’ইন এবং ডি’জিটাল নিরাপত্তা আ’ইনে দু’টি মা’ম’লা করেন ওই ছা’ত্রী। এরপর ২১ সেপ্টে’ম্বর স’ন্ধ্যা সাড়ে ৮টার দিকে নুর’কে গ্রে’ফ’তার করে পু’লিশ। ধ”র্ষ”ণের মা’মলার পাশা’পাশি পু’লি’শের ওপর হা’ম’লার অ’ভিযো’গে’ও তাকে আ’ট’ক করা হয়। এরপর তাকে নে’য়া হয় ডিবি কার্যাল’য়ে। ঢাকা মে’ডিকেল ক’লেজ হাসপা’তা’লে (ঢামেক) চিকিৎসা শে’ষে রাত ১২টা ৩৫ মিনিটে তাকে ছেড়ে দেয়া হয় তাকে।

 

এই প্রেক্ষাপটে গত রোববার রাতে রাজ’ধানীর ম’গবা’জার ও আজিমপুর থেকে মা’মলার দুই আ’সামি সাই’ফুল ইস’লাম ও না’জমুল হুদা’কে গ্রে’প্তা’র করে গোয়েন্দা পু’লিশ। বাংলাদেশ ছাত্র অধি’কার পরিষদের এই দুই নেতা দীর্ঘ দিন নূরের রাজ’নৈ’তিক সহ’কর্মী, ধ’র্ষ’ণ ও ধ’র্ষ’ণে সহযো’গিতার অ’ভিযোগের ওই মা’ম’লার আ’সা’মি। ওই অ’ভিযান চলার মধ্যে ফেস’বুক লা’ইভে এসে ১ ঘণ্টা ২২ মিনিট কথা বলেন ডাকসুর সাবে”ক ভিপি। মে’য়েটির চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুলে নূর বলেন, ভিক’টিমের পরিচয় তো ই’তোমধ্যে গণ’মাধ্য’মে উঠে এসেছে। ঢাবি’র ইস’লা’মিক স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের না কি ছা’ত্রী…।

 

তার ভাই বলেছিল, নাজমুল হাসান সোহাগ তাদের বাসায় যাওয়া-আসা করত। তাদের সাথে বি’য়ের কথাবার্তাও পাকা’পোক্ত হয়েছিল। নাজমুল সোহা’গের সাথে যে একটা ছবি ফেইস’বুকে ভাই’রাল হয়েছে আপনা’রা দে’খেছেন, লঞ্চের কেবিনে হা’সিখুশি’ভাবে। যে লঞ্চের কে’বিনে মে’য়েটি ধ’র্ষণের অ’ভিযোগটি এনেছি’ল, সেই লঞ্চের কেবিনে।

 

এ’কেবারেই হা’স্যরসা’ত্মক, ছিঃ! আম’রা ধিক্কার জানাই যে, এত নাট’ক করছে, যেই দুশ্চরি’ত্রাহী’ন। যে ধ’র্ষণের নাট’ক করছে। স্বেচ্ছা’য় একজন ছে’লের সাথে বি’ছা’নায় গিয়ে, ল’ঞ্চে হা’সিখুশি’ভাবে। নি’জের এই অব’স্থানে’র পক্ষে যু’ক্তি দিয়ে পটু”য়া’খালীর ছে’লে নূর বলেন, লঞ্চে পাশা;পাশি কেবিন। ল’ঞ্চের কেবি’নে ধ’র্ষ’ণ করা স’ম্ভব? একটা চি’ল্লানি দিলে তো আ’শপা’শের মানুষ জড়ো হয়ে যায়। তার’পর ধ’র্ষ’ণ করে তা’রা নি’চে না”মে নাই? সেখানে মা’নুষের কাছে বলতে পারত না? ভাই সো’হাগ আ’মা’কে ‘করেছে, তাকে ধরেন।

 

মে’য়েটির অ’ভিযোগ, একই বিভাগে’র শি’ক্ষার্থী এবং ছাত্র অধিকার পরিষদে’র কর্মী হওয়ায় এই পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনের সঙ্গে তার ‘প্রে’মের স’ম্প’র্ক’ হয়। সেই স’ম্প’র্কের জের ধরে ৩ জা’নুয়ারি লাল’বাগের বাসা’য় নিয়ে তাকে ‘ধ’র্ষ’ণ করেন’ মামুন। তখন সংগঠন’টির যুগ্ম আ’হ্বায়ক নাজমুল হাসান সো’হাগ তার পা’শে দাঁড়ান।

 

চিকিৎসায় সহায়তা করার পর মামুনকে খুঁজে পেতে সাহা’য্যের কথা বলে চাঁদপু’রে নিয়ে ফেরার পথে না’জমুল সোহাগও লঞ্চের মধ্যে তাকে ‘ধ’র্ষ’ণ করেন’। পরে ঘট’নার প্রতিকা’র চেয়ে তিনি নূরসহ তাদের অ’পর সহক’র্মীদের কাছে গেলে প্রথমে সহযোগি’তার আশ্বা’স দি’লেও পরে ‘বাড়াবা’ড়ি করলে চরিত্রহ’ননের’ ভ’য় দেখান।

 

তার অ’ভি’যোগের স’ত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে নুরুল হক নূর বলেন, ধ”র্ষণ করেছে জানুয়ারি মাসে। এতদিন মা’মলা করতে পারে নাই? বিশ্ববিদ্যালয় ‘কাছে একটা লিখিত অ’ভি’যোগ দিতে পারে’ নাই? প্রক্টরের কাছে একটা লিখিত অ’ভিযো’গ দিতে পারে নাই? থা’নায় একটা মা’মলা করতে পারে নাই? এগুলো অনেক বিষয় ‘আছে। বেগম ‘মতো নেত্রী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী, ‘দুই কোটি টাকা না ছয় কোটি টাকার জন্য মি’থ্যা মা’মলা’য় জে’লে নিয়েছে। কাজেই সেখানে আমাদে’র কেউ হলে তো আর যু’ক্তি দিয়ে টিকবে না। যাই হোক, দেখা যাক। তবে আ’মাদের সহযো’দ্ধা ও শুভাকা’ঙ্ক্ষীদের আশ্বস্ত করতে পারি যে, ‘ভিপি নূর, যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল ইস’লাম, আব্দুল্লাহ হিল বাকি এবং নাজ’মু’ল হুদা- এই চারজনের ঘটনার সাথে কোনো সংশ্লিষ্টতা নাই।

 

অ’পর দুই আ’সামির মধ্যে হাসা’ন আল মামুন মে’য়ে’টিকে চিন’তেন বলে স্বী’কার করেছে’ন জা’নিয়ে তিনি ব’লেন, মামুন ও নাজ’মুল হাসান সোহাগের বিষয়ে তিনি নি”শ্চিত নন। নি’জের বি’রু’দ্ধে দুটি অ’ভিযো”গের বিষয়ে নূর বলেন, আমি চ্যা’লেঞ্জ করে বলছি, দুটি অ’ভিযোগ তো প্রধান; তাকে আমি প’তিতা বলে হু’মকি দিয়েছি। যদি প্রমা’ণ করতে পারে, সেচ্ছায় ফাঁ’সি নেব। যদি প্র’মাণ ক’রতে পারে, তার সাথে আমা’র নীল’ক্ষে’তে দেখা হয়ে’ছিল বা মী’মাংসার জন্য তার সাথে নীল’ক্ষেতে ব’সেছি’লাম। এই দুটা অ’ভিযো’গের একটা যদি প্র’মাণ করতে পারে, স্বে’চ্ছায় ফাঁ’সি নেব। লাইভে এসে বললাম।

 

হাসান আল মা’মুন ও নাজমুল হাসান সোহাগের বিষয়ে ভিডিওতে নুরুল হক নূর বলেন, আম’রা বার বার বলছি, আবারও বলছি, হাসান আল মামুন ও নাজমুল হাসান সোহাগের দায়ভা’র আম’রা নেব না। কারণ হাসান আল মামুন ও নাজমুল হাসান সোহাগের বিষয়ে আম’রা বিস্তারিত জানি না। হাসান আল মামুন বলেছে, তারা একই বিভাগের ছাত্র, তার সাথে তার পরিচ’য় ছিল।কিন্তু ধ’র্ষ’ণ বা শা’রী’রিক স’ম্প’র্ক হয়েছে কি না, এ বিষ’য়ে আম’রা কিছু জানি না। আমা’দের কাছে কিছু বলেওনি। যেহেতু তার সাথে পরি’চয় ছিল, সেখা’নে কিছু হতে পারে, সেটা একেবা’রেই উ’ড়িয়ে দেব না।

 

ফেস’বুক লাইভে এসে এসব বলার কারণ জা’নতে চাইলে নূর বলেন, যেই ঘটনার সাথে আমি জ’ড়িত না, সেই ঘটনায় আমা’কে জড়ি’য়ে যে আমা’র সম্মা’নহানি, আমা’কে প্রশ্ন’বিদ্ধ করতে চায়, অবশ্যই ‘তার ব্যক্তিত্ব, তার উদ্দেশ্য ও চরিত্র নিয়ে আমি প্রশ্ন তু’লতে পারি। তাছা’ড়া এতগুলো মানু’ষের বি’রু’দ্ধে অ’ভিযো’গ, তাদের পরি’বা’রকে হয়’রানি। এটা কোনো ব্য’ক্তিত্ব সম্পন্ন ‘কাজ হতে পারে না।

 

আ’সামিদের গ্রে”প্তা’রের দাবিতে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যা’লয়ের টিএ’সসির রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ওই ছা’ত্রীর অনশন নিয়ে নূর বলেন, পৃথিবীর কোনো দেশে এমন অনশন দেখেছেন? ফ্যান চলে, স্যা’লাইন চলে, নাস্তার প্যাকেট, খাবার এবং সেখানে ছাত্র’লীগ নেত্রীরা। ছাত্রলীগ ছাড়া কেউ নেই তার পাশে। ছাত্রলীগ তাকে দিয়ে এগুলো করা’চ্ছে। কাজেই তার কা’র্য’ক্রম নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারি। কোনো প্রমাণ ছাড়া আমা’র চরিত্র’হনন করার চেষ্টা করছে, আমা’র রা’জনৈ’তিক ক্যারি’য়ারে কালিমা লে’পনের চেষ্টা করা হচ্ছে। সেই দিক থেকে আমি যা বলেছি তা যথাযথ, অবান্তর কিছু নয়।

 

সাইফুল ও না’জমুল হুদা’কে গ্রে’প্তা’রের কথা পু’লিশ জা’নালেও নূর বলেছেন, তাদের সংগঠনের আরেক যুগ্ম আহ্বায়ক সোহরাব হোসে”নসহ তিন’জনের খোঁজ ‘পাচ্ছেন না’। দুজ’নকে গ্রে’প্তা’র দেখানো হয়ে’ছে। সোহরাব হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যাল’য়ের সাংগঠ’নিক স’ম্পাদক আ’সিফ মাহমুদ ও ‘হিল বাকি, তিনজ’নেরই কোনো খোঁজ খবর পাচ্ছি না। তারা যদি নি’রাপদে থাকত তাহলে একটা ফেসবুক স্ট্যা’টাস দিয়ে হলেও জানাত। আমা’র মনে হয়, তাদের গু’ম করা হয়েছে। কারণ গ’তকালও ওই দুজনকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে পরদিন গ্রে’প্তা’র দেখিয়েছে। নূরের ফেস’বুক লাইভ’কে কেন্দ্র করে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ‘সা’ইবার বুলিংয়ের’ অ’ভি’যোগে শাহবাগ থা’নায় আ’রেকটি মা’ম’লা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *