Categories
জাতীয়

বাবুনগরী এবং তার অনুসারীরা আহমদ শফীকে মা’রা যেতে বা’ধ্য করেছেন, বি’চার হওয়া উচিত

সাদিয়া নাসরিন: যু’দ্ধাপরাধের বি’চার চাইতে আমরা শাহবাগে ছিলাম রাতের পর রাত, দিনের পর দিন। পাশেই শীর্ষ যু’দ্ধাপ’রাধী গোলাম আজম ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয় (পিজি) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। কেউই তাকে হাসপাতাল ভে’ঙে,অবরু’দ্ধ করে, মান’সিক চাপ সৃষ্টি করে, ডাক্তার আসতে বা’ধা দিয়ে, বিনা চিকিৎসায় মে’রে ফেলেনি।

 

অন্যান্য যু’দ্ধাপ’রাধীরা বছরের পর বছর নিজেদের স’র্বোচ্চ আ’ইনি ল’ড়াইয়ের সুযোগ নিয়েছেন, পেয়েছেন এবং যথাযথ আই’নি প্রক্রিয়ায় তাদের মৃ’ত্যুদ’ন্ড হয়েছে। একই প্রক্রিয়ায় যথাযথ নিয়ম’নীতি মেনে বি’চার হয়েছে বঙ্গবন্ধুর হ”ত্যাকা’রীদেরও। কারণ এটাই সভ্যতার পুল’সিরাত। সরকার চাইলেই বিনা বিচারেও মে’রে ফেলতে পারতেন এই ঘৃ’ণ্য অপ’রাধীদের। বেশিরভাগ মানুষের সমর্থনও থাকতো আমি নিশ্চিত। কিন্তু মু’ক্তিযু’দ্ধের পক্ষের সরকার রা’ষ্ট্রক্ষ’মতায় থেকেও তা করেননি। কেন করেননি সেই আলোচনার প্রয়োজন দেখছি না।

 

কোনো সভ্য সরকারই তা করবেন না। হেফাজতে ইসলামের আমীর আহমদ শফী প্রকৃৃতই একজন নারী বি’দ্বেষী ছিলেন, তাতে কোনো স’ন্দেহ নেই। মু’ক্তিযু’দ্ধে তার ভূমিকার কারণেই আমার রাজনৈতিক অবস্থান তার বিপরীত মেরুতে অবশ্যই। কিন্তু যে কারণে একজন ধ”র্ষ’কেরও বিনা বি’চারে শা’স্তি আমি চাই না, যু’দ্ধাপরা’ধীরও বিনা চিকিৎসায় মৃ’ত্যু আমি কাম’না করি না, ঠিক একই কারণে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বলেই কারও অ’বরু’দ্ধ মৃ’ত্যু আমি সমর্থন করি না।

 

প্রশাসনের প্রবেশ আট’কে, তিনদিন যাবৎ শতোর্ধো এই বৃ’দ্ধকে অ’বরু’দ্ধ রেখে ভ’য়ান’ক মা’নসিক চাপ সৃষ্টি করে, হ’য়রা’নির মুখে অ’সুস্থ হয়ে পড়লে অ্যাম্বুলেন্স আ’টকে রেখে চিকিৎসায় বা’ধা দিয়ে বাবুনগরী এবং তার অনুসারীরা যে অ’রাজকতার মধ্যদিয়ে আহমদ শফীকে মৃ’ত্যুব’রণ করতে বা’ধ্য করেছেন, তার যথাযথ বি’চার হওয়া উচিত বলে আমি মনে করি।

 

বছরের পর দেশের প্রচলিত আইন, শিক্ষা ব্যবস্থা, অর্থনৈতিক অ’বকাঠামোর নিয়ন্ত্রণের বাইরে থেকে, সরকারের আ’পোস রফার প্রশ্রয় পেয়ে এই বিশাল কওমি জনগোষ্ঠি যে শক্তি সঞ্চয় করেছে, তার ছোট নমুনা দেখালো হাটহাজারি মাদ্রাসায় গত কয়দিনের তা’ণ্ডবে।

 

আহমাদ শফীর এই মৃ’ত্যু কিংবা পরোক্ষ হ”ত্যা থেকে সরকার কোনো বার্তা নেবেন কিনা সেটা সরকার জানেন। তবে আমরা যে পরিষ্কার বার্তাটি পেলাম তাহলো, ক’ঠিন হাতে দ’মন করতে না পারলে ফ্রা’ঙ্কস্টা’ইনের এই দৈত্য আর ট্রেইলরে থাকবে না, পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র হয়ে পূর্ণপ্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে। ফেসবুক থেকে

সুত্রঃ আমাদের সময় 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *