Categories
জাতীয়

একই রশিতে প্রেমিক যুগলের ঝুলন্ত লা’শ, মোবাইলে সু’ইসাইড নোট

বরিশালের উজিরপুরে আম গাছের সাথে একই রশিতে প্রিন্স বালা (২৫) ও তৃষ্ণা (১৭) নামে এক প্রেমিক যুগলের ঝুলন্ত লা’শ উ’দ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত প্রিন্সের মোবাইলে একটি সু’ইসা’ইড নোট পাওয়ায় প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা এই প্রেমিক যুগল আ’ত্মহ’ত্যা করেছে।

মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী ইন্দুরকানি গ্রামের খোকন রায়ের বাড়ির আম গাছে তাদের ঝুল’ন্ত লা’শ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে তাদের লা’শ উ’দ্ধার করে ময়নাতদ’ন্তের জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে উজিরপুর মডেল থানা পুলিশ।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের ইন্দুরকানি গ্রামের খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সমীর বালা ছেলে প্রিন্স বালা। গত ৮ বছর আগে প্রেম করে পার্শ্ববর্তী আগৈলঝাড়া উপজেলায় তালতারমাঠ গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের মিনুকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে চার বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। এরই মধ্যে প্রিন্সের সাথে গত দুই মাস ধরে একই গ্রামের তৃষ্ণার পর’কীয়া প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিলো। এ বিষয়টি নিয়ে দুই পারিবারের মধ্যে ক’লহ সৃষ্টি হয়।

 

পুলিশ ধারণা করছে, পারিবারিক ক’লহ থেকে মু’ক্তি পেতে সোমবার রাতের কোনো এক সময় প্রেমিক যু’গল প্রিন্স ও তৃষ্ণা একসাথে গলায় ফাঁ’স দিয়ে দিয়েছে। তবে তারা সহমর’ণের উদ্দেশ্যে স্বেচ্ছায় আ’ত্মহ’ত্যা করেছে নাকি পরিকল্পিতভাবে হ’ত্যা করে আ’ত্মহ’ত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার অপচেষ্টা করা হচ্ছে সে বিষয়টিও অনুস’ন্ধানে নেমেছে পুলিশ।

 

লা’শ উ’দ্ধারকারী উজিরপুর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদ’ন্ত) হেলাল উদ্দিন জানান, ঘটনাস্থল থেকে উ’দ্ধার হওয়া প্রিন্সের মোবাইল ফোনে তার লেখা একটি ম্যাসেজ পাওয়া গেছে।

ওই ম্যাসেজে লেখা রয়েছে, ‘আমরা স্বেচ্ছায় আ’ত্মহ’ত্যা করেছি। আমাদের মৃ’ত্যুর পরে আমার এই মোবাইল ফোনটি যে পাবেন তার কাছে অনুরোধ আমাদের দু’জনকে যেন এক সঙ্গে এক কবরে সমাধিস্থ করা হয়’। এই ধরণের ম্যাসেজ পাওয়ায় প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে তারা আত্মহ’ত্যা করেছে।

 

উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউল আহসান বলেন, প্রিন্স ও তৃষ্ণার মৃ’ত্যু র’হস্য উন্মোচনে তাদের লা’শ ময়নাতদ’ন্তের জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ম’র্গে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *