Categories
জাতীয়

“লাল কেল্লা” এখন” ডালমিয়া ভারত লাল কেল্লা”

মুঘল বাদশাহ শাহজাহানের তৈরি প্রায় চারশো বছরের পুরনো লাল কেল্লার নাম পরিবর্তন হচ্ছে। জানা গেছে, ২৫ কোটি রুপি খরচ করে লাল কেল্লার দেখাশোনা করবে একটি সিমেন্ট নির্মাতা সংস্থা। এর বিনিময়ে ওই কোম্পানির নাম জুড়ে লাল কেল্লাকে ‘ডালমিয়া ভারত লাল কেল্লা’ নামে ডাকা হবে।

সম্প্রতি কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম প্রকাশিত প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে। সেখান আরো বলা হয়েছে, লাল কেল্লাকে এর মাধ্যমে করপোরেট সংস্থার কাছে বন্ধক দেওয়া হচ্ছে বলে বিরোধী দলগুলো তীব্র সমালোচনায় মুখর হয়েছে। যদিও সরকারের যুক্তি, ঐতিহাসিক মনুমেন্টগুলোয় পর্যটক সুবিধা উন্নত করতেই এ পদক্ষেপ। মুঘল বাদশাহ শাহজাহানের তৈরি প্রায় ৪০০ বছরের পুরনো লাল কেল্লা স্বাধীন ভারতেও এক অনন্য স্মারক।

কারণ, প্রতি বছরের ১৫ আগস্ট ভারতের প্রধানমন্ত্রীরা এখানেই তেরঙা জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন, জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন। কিন্তু সেই লাল কেল্লার নামের সঙ্গে একটি শিল্প গোষ্ঠীর নাম জুড়ছে- এ খবর সামনে আসতেই বিরোধী দলগুলো জোর হইচই শুরু করে দিয়েছে।

দেশটির সংস্কৃতিমন্ত্রী মহেশ শর্মার কথায়, ‘আমাদের এসব ঐতিহাসিক স্থাপত্য ও হেরিটেজ আমাদের গর্ব- তাকে বিশ্বের পর্যটকদের কাছে কীভাবে আরও ভালোভাবে তুলে ধরা যায়, সেটাই ছিল এর লক্ষ্য। আর এখানে তাদের আর্থিক মুনাফার কোনো ব্যাপারই নেই। কারণ টিকিট বিক্রির সব টাকা সরকারি কোষাগারেই যাবে।’

তবে এ মুহূর্তে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে লাল কেল্লায় সুযোগ-সুবিধা যে বেশ নিম্নমানের, তা অবশ্য কেউই অস্বীকার করতে পারবেন না। আর এ কারণেই ডালমিয়া গোষ্ঠীর ডিরেক্টর পুনিত ডালমিয়া বলছেন, ‘আমরা লাল কেল্লাকে ঠিকমতো মার্কেট করার ওপর জোর দেব- ভালো ওয়েবসাইট বা প্রচার-পুস্তিকার মাধ্যমে এমনভাবে সেটি গড়ে তুলব, যাতে দিল্লিবাসী গর্বের সঙ্গে বলতে পারেন এ শহরে এলে অবশ্যই লাল কেল্লাটা ঘুরে যাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *