Categories
জাতীয়

সিনহা হ’ত্যা: প্রত্যক্ষদর্শী মুয়াজ্জিনের খোঁজ পাচ্ছে না পরিবার

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্ম’দ রাশেদ খানকে গু’লি করার ঘটনার তিন প্রত্যক্ষদর্শীকে হু’মকি দেয়া হয়েছে। জানা গেছে, ওই দিনের ঘটনা গণমাধ্যমে বর্ণনা করায় তাদের এ হু’মকি দেয়া হয়। এরইমধ্যে ঘটনার এক প্রত্যক্ষদর্শী নি’খোঁজ হয়েছেন। আর বাকি দুইজন রয়েছেন চরম আতঙ্কে।

 

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শামলাপুরের বাইতুন নূর জামে ম’সজিদের ই’মাম ও খতিব হাফেজ মা’ওলানা শহিদুল ইস’লাম বলেন, সিভিল ড্রেসে ও পু’লিশের পোশাকে কয়েকজন এসেছিল। তারা আমাকে বলেছেন, ম’সজিদের ই’মাম সাব, আপনার এটা নিয়ে কিসের এতো কিছু। আপনি এ রকম ইয়ে করবেন না, ইয়ে করলে মানি আপনাকে এ রকম এ রকম করা হবে। এটা স্বাভাবিক।

 

‘এ রকম এ রকমের’ ব্যাখ্যা জানতে চাইলে শহিদুল ইস’লাম বলেন, এটা কি করা হবে সেটা পরিপূর্ণভাবে বলেনি তারা।সিনহা ঘটনার আরেক প্রত্যক্ষদর্শী শামলাপুরের রোহিঙ্গা ম’সজিদের মুয়াজ্জিন মো. আমিন। ঘটনার একদিন পর থেকে তার খোঁজ পাচ্ছে না পরিবার।

 

মুয়াজ্জিনের স্ত্রী’’র দাবি, এ পর্যন্ত চার বার আমিনের খোঁজ করেছে পু’লিশ। তিনি জানান, ঈদের দিন পিঠা খেয়ে বাড়ি থেকে বের হন আমিন। আর বাড়িতে ফেরেননি। তার খোঁজ এখনো পাননি তিনি। পু’লিশ বাড়িতে এসে ভিডিও করেছে। এ সময় তার স্বামীকে না পেলে সমস্যার হুঁশিয়ারিও দিয়েছে পু’লিশ।

 

ঘটনার আরেক প্রত্যক্ষদর্শী অটো-রিকশাচালক কালাম। তিনি জানান, রাতে তার ঘরে ঢুকে তিনি কালাম কিনা জানতে চায় পু’লিশ। পরিচয় দিতেই ঘটনার সাক্ষীর ব্যাপারে জানানো হয়। সাক্ষী দেয়ায় তাকে ও তার পরিবারকে হু’মকি দেয়া হয়। গালমন্দ করার পাশপাশি ঘরের দরজা ভেঙেছে পু’লিশ।

 

এদিকে প্রত্যক্ষদর্শীদের অ’ভিযোগ, ঘটনার পর তাদের বাড়িতে যে পু’লিশ কর্মক’র্তা গিয়েছিলেন তিনি এসআই অরুন কুমা’র চাকমা। তবে তার সঙ্গে গণমাধ্যম কর্মীরা ফোনে যোগাযোগ করতে পারেননি।

 

গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ৯টায় কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভের শামলাপুর চেকপোস্টে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্ম’দ রাশেদ খানকে গু’লি করেন বাহারছঁড়া পু’লিশ ত’দন্ত কেন্দ্রের ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী। গু’লির পর সিনহার মৃ’ত্যু হয়। একইসঙ্গে সিনহার ভ্রমণচিত্র নির্মাণের সহকারী সাইদুল ইস’লাম সিফাতকে আ’ট’ক করে পু’লিশ।

 

পরদিন ভ্রমণচিত্র নির্মাণের জন্য এক মাস ধরে সহকারীদের নিয়ে অবস্থান করা হিমছড়ির নীলিমা রিাসোর্টে অ’ভিযান চালায় রামু থা’না ও হিমছড়ি পু’লিশ ত’দন্ত কেন্দ্রের পু’লিশ। সেখানে ভিডিও করে অ’ভিযানকারী দল। তখন মা’দক আইনে সিনহার আরেক সহকারী শিপ্রা রানী দেবনাথকে আ’ট’ক করা হয়।

 

এরপর রিসোর্ট থেকে সিনহার ল্যাপটপ ও তিনটি হার্ডডিস্ক গায়েব হয়। অ’ভিযানের ভিডিওতে সিনহার ল্যাপটপের সামনেই বসে শিপ্রা কথা বলেন। এছাড়া অ’ভিযানের সময় এক পু’লিশ সদস্য সিনহার সিপিউ নাড়াচাড়া করার মুহূর্ত ভিডিওতে ধ’রা পড়ে।

 

অন্যদিকে পু’লিশের জ’ব্দ তালিকায় সিনহার ল্যাপটপ ও তিন হার্ডডিস্ক উল্লেখ করা হয়নি। রিসোর্টের অ’ভিযানের ভিডিওতে গু’লিও উ’দ্ধার দেখা যায়। তবে জ’ব্দ তালিকায় গু’লি পাওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *