Categories
আন্তর্জাতিক

সম্পর্ক নষ্ট হয় এমন কাজ বন্ধ করুন: রাম মন্দির নির্মাণ ইস্যুতে ভারতকে বাংলাদেশ

সম্পর্ক নষ্ট হয় এমন কাজ বন্ধ করুন: রাম মন্দির নির্মাণ ইস্যুতে ভারতকে বাংলাদেশ

বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট করে এমন যে কোন ঘটনা প্রতিরোধের ব্যাপারে ভারতের সরকার ও সমাজের একটি দায় রয়েছে।

অযোধ্যায় হিন্দু সন্ত্রাসীদের হাতে শহীদ হওয়া বাবরি মসজিদের জমিতে আগামী ৫ আগস্ট রাম মন্দির নির্মাণ কাজ উদ্বোধনের জবাবে গত রোববার (২৬ জুলাই) এক বিবৃতিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এ কথা বলেন।

দি হিন্দু-র খবরে বলা হয়, বাংলাদেশের ভাষ্যকারদের মতে রাম মন্দির ইস্যু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কট্টর বিরোধীদের জন্য নতুন রাজনৈতিক সুযোগ এনে দেবে।

বাবরি মসজিদের জমিতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের রাম মন্দির নির্মাণ প্রশ্নে বাংলাদেশের অবস্থান ব্যাখ্যা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম দি হিন্দুকে বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ঐতিহাসিক ও আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে। আমরা এই মন্দির নির্মাণ নিয়ে আমাদের সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত হতে দেব না।

কিন্তু আমি ভারতকেও বলবো যেন এমন কোন ঘটনা ঘটতে দেয়া না হয় যা আমাদের মধ্যে সুন্দর ও গভীর সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করে। এটা দুই দেশের জন্যই ভালো এবং আমি বলবো যে দুই দেশকে এমনভাবে কাজ করতে হবে যেন এ ধরনের বিঘ্নতা এড়ানো যায়।

ভারতীয় এই পত্রিকাটিকে টেলিফোনে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের সবাইকে সুসম্পর্ক বিকশিত করার জন্য ভূমিকা রাখতে হবে। আমাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রক্ষার দায় আপনাদের সমাজেরও রয়েছে। সম্পর্ক যেন সঠিক পথে এবং মনযোগ উন্নয়ন তৎপরতার উপর থাকে তা নিশ্চিত করার প্রচেষ্টার অংশ জনগণ ও মিডিয়াও।

এছাড়াও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ ও সুশিল সমাজের সদস্যদরাও উদ্বেগও প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, মন্দির নির্মাণ ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হলেও তা বাংলাদেশের জনগণের আবেগের উপর প্রভাব ফেলবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, এই ঘটনা বাংলাদেশে এককত্বের রাজনীতিকে সুযোগ এনে দেবে। অথচ ১৯৭১ সালে দ্বিজাতি তত্ত্ব থেকে সরে এসেছিলো বাংলাদেশ। এই তত্ত্ব নিয়ে আমরা স্বস্তি অনুভব করি না কিন্তু লক্ষণগুলো বলছে যে ভারত দ্বিজাতি তত্ত্বের পথে হাটছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, বাংলাদেশ আঞ্চলিক শান্তি চায়। তাই সবার সঙ্গেই সংলাপ প্রত্যাশা করে। গত সপ্তাহে
প্রধানমন্ত্রীর সাথে ইমরানের মধ্যে ফোনালাপকে সৌজন্যমূলক হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি।

টেলিফোনের বিষয়টি ফুলিয়ে ফাপিয়ে প্রচার করার জন্য ভারতীয় মিডিয়াকে দায়ি করে তিনি বলেন, পাকিস্তান যদি আমাদেরকে টেলিফোন করে তাতে সমস্যা কোথায়?

তারা আমাদেরকে ফোন করলে কোথাও সমস্যা থাকতে হবে? আমরা সবাইতো একই দুনিয়ায় বাস করি।
সূত্র ইনসাফ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *