Categories
জাতীয়

ডা. সাবরিনাকে ফাঁসিয়ে দিয়েছে স্বামী আরিফ!

করোনাভাইরাস পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রে’ফতার জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীর জবা’নব’ন্দিতেই ফেঁ’সে যান তার স্ত্রী ডা. সাবরিনা চৌধুরী। করোনাভাই’রাস পরী’ক্ষার নমুনা সংগ্রহ ও ভু’য়া ফল দেয়ার ঘটনায় সাবরিনার সম্পৃ’ক্ততার কথা জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন আরিফ।

 

আরিফের সঙ্গে গ্রে’ফতার হওয়া আরও দুজনও একই তথ্য জবা’নব’ন্দি দিয়েছে পুলিশকে। এরপরই সাবরিনাকে ডাকা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদের করোনা টেস্ট কে’লেঙ্কা’রিতে তার সংশ্লি’ষ্টতার বিষয়ে স্পষ্ট হয় পুলিশ। এরপরই রোববার এই চিকিৎসককে গ্রে’ফতার করা হয়। এমনটাই জানিয়েছে পুলিশ।

 

ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের সহকারী কমিশনার মো. মাহমুদ খান জানান, জিজ্ঞা’সাবাদে আরিফ দাবি করেন, করো’নার নমুনা পরীক্ষার জা’লিয়াতির ঘটনায় তিনি সাবরিনাসহ ৪ জনকে চাকরি’চ্যুত করেন। তবে একজন সিইও হয়ে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানকে চাকরি’চ্যুত করতে পারেন কি না, সে ব্যাপারে জানতে চাইলে আরিফ কোনো উত্তর দিতে পারেননি। কাউকে চাকরিচ্যু’তির কাগজপত্রও দেখাতে পারেননি।

পুলিশ কর্মকর্তা মো. মাহমুদ খান আরও জানান, ওভাল গ্রুপের সিইও আরিফুল চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি পুলিশ জানান, করোনার নমুনা পরীক্ষার জা’লিয়াতির সঙ্গে তার অফিসের কিছু লোক জড়িত ছিল। যখন তিনি বিষয়টি জানতে পারেন, তখন তাদেরকে তিনি চাকরি থেকে বাদ দিয়ে দেন। তাদের মধ্যে সাবরিনাও আছেন।

 

সাবরিনা চৌধুরী পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ও ফেসবুক স্ট্যাটাসে জেকেজির সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগের কথা বলেছে। এ সম্পর্কে পুলিশ কর্মকর্তা মাহমুদ খান বলেন, তিনি বলার চেষ্টা করছেন, তিনি জেকেজির চেয়ারম্যান নন। কিন্তু তিনিই যে জেকেজির মুখপাত্র, সেটি সবাই জানেন। তিনি নিজে ফেসবুক ও ইউটিউবে প্র’চারণা চালিয়েছেন। কথা বলেছেন। আর তিনি যে জেকেজি থেকে বেরিয়ে গেছেন, এমন কোনো পদত্যাগপত্র তো তিনি জমা দেননি। ওভাল গ্রুপ ও জেকেজি হেলথ কেয়ার কোম্পানির কাগজপত্র জব্দের চেষ্টা করা হচ্ছে।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালন করে আসা ডা. সাবরিনা জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফুল হক চৌধুরীর স্ত্রী। সে কারণে সাবরিনা আরিফ চৌধুরী নামেই তিনি পরিচিত। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ওভার গ্রুপ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা এ চৌধুরী।

 

আরিফসহ ছয়জন গ্রেফতার হওয়ার পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জেকেজির প্রতা’রণার সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান সাবরিনার নামও উঠে আসে। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় ডাকা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।কোভিড-১৯ টেস্ট নিয়ে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সাবরিনা এ চৌধুরীর তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার ডা. সাবরিনার জামিন আবেদন বাতিল করে ঢাকার মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান এ আদেশ দেন।তেজগাঁও থানা পুলিশ এদিন সকালে সাবরিনাকে আদালতে হাজির করে তাকে চার দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে।অন্যদিকে পুলিশের রিমান্ড আবেদনের বিরোধিতা করে সাবরিনার পক্ষে জামিনের আবেদন করেন অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম সুমনসহ কয়েকজন আইনজীবী।

 

শুনানি শেষে বিচারক জামিন আবেদন নাকচ করে এই চিকিৎসককে তিন দিনের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন।জানা যায়, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় করোনার নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা না করেই জেকেজি প্রতিষ্ঠানটি ১৫ হাজার ৪৬০ টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট সরবরাহ করে।

 

পুলিশ জানিয়েছে, জেকেজি হেলথকেয়ার থেকে ২৭ হাজার রোগীকে করোনার টেস্টের রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১১ হাজার ৫৪০ জনের করোনার নমুনার আইইডিসিআরের মাধ্যমে সঠিক পরীক্ষা করানো হয়েছিল। বাকি ১৫ হাজার ৪৬০ রিপোর্ট প্রতিষ্ঠানটির ল্যাপটপে তৈরি করা হয়। জব্দ করা ল্যাপটপে এর প্রমাণ মিলেছে। আরিফ চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানান, জেকেজির ৭-৮ কর্মী ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করেন।

জেকেজির মাঠকর্মীরা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে করোনা উপসর্গ দেখা দেয়া মানুষের নমুনা সংগ্রহ করতেন। প্রতি রিপোর্টে ৫-১০ হাজার টাকা নেয়া হতো। আর বিদেশিদের কাছ থেকে নেন ১০০ ডলার। সেই হিসাবে করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্টে প্রায় ৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে জেকেজি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *